Monday , September 24 2018
Home / মুক্তমত / জামায়াতের ঐতিহাসিক ভুলগুলো..

জামায়াতের ঐতিহাসিক ভুলগুলো..

“জামায়াতের ঐতিহাসিক ভুলের কারণেই ১৯৯৬ এ আওয়ামীলীগ ক্ষমতায় এসেছিল। তারই ধারাবাহিকতায় জাতি আজও খেসারত দিচ্ছে।” “জামায়াত ৯১ এ বিএনপি, ৯৬ এ আওয়ামীলীগ, ০১ এ আবার বিএনপির সাথে জুটেছে। সুতরাং জামায়াত একটি নীতিবিবর্জিত দল।” এ মন্তব্য বহুল প্রচলিত! এমনকি জামায়াতেরও অনেক সমর্থক কর্মীর মুখে এ কথা শুনেছি। ভালো কথা!

এবার জামায়াতের এই নীতিহীনতার পেছনের কাহিনী জানা যাক। ৯১এ জামায়াত পেয়েছিল ১৮/১৯আসন। বিএনপি ও আওয়ামীলীগ কেউই এককভাবে সরকার গঠনের প্রয়োজনীয়সংখ্যক ১৫০ আসন পায়নি। জাতীয় পার্টির প্রাপ্ত সিটগুলোর সমর্থন আওয়ামীলীগ পেয়ে যায়, কিন্তু তারপরও ১৫০ হয়নি যোগফল। এখন জামায়াতের সিট যেদিকে যাবে সে দলই সরকার গঠন করবে। আর যদি জামায়াত কাউকেই সমর্থন না দেয় অথবা এমন শর্ত দেয় যার কারণে কোন দলের পক্ষে জামায়াতের সিটগুলো নেয়া অসম্ভব হয় তখন নির্বাচন বাতিল হবে এবং সদ্যবিদায়ী সেনাসরকার এসে অনেক সংগ্রামের মাধ্যমে পাওয়া গণতন্ত্র বিপন্ন করবে। এখন জামায়াত কি করবে? ডিশিসন মেকিংয়ে আপনাকে রেখে কল্পনা করুন। কি করতেন আপনি? আপনি/আমি হলে যা করতাম, জামায়াতও তা-ই করেছে।

জামায়াত ‘ নির্বাচনকালীন কেয়ারটেকার সরকার’ ফর্মুলার প্রবর্তক। জামায়াত এ ফর্মুলাকে সামনে রেখে আন্দোলন করেছে এরশাদের পতনের জন্য। একই ইস্যুতে রাজপথে ছিল বিএনপি আওয়ামীলীগও। ৯৬এ এসে বিএনপি কেয়ারটেকার বিরোধী। জামায়াত কেয়ারটেকারের পক্ষে। আওয়ামীলীগ কেয়ারটেকারের পক্ষে। বিএনপির গোয়ার্তুমির কারণে আওয়ামীলীগ ক্ষমতায়।

২০০১ এ বিএনপি কেয়ারটেকারের পক্ষে। জামায়াত কেয়ারটেকারের পক্ষে। আওয়ামীলীগ মৃদু বিপক্ষে। ২০১৪ আর ২০১৮ তে এসে বিএনপি কেয়ারটেকারের পক্ষে। জামায়াত কেয়ারটেকারের পক্ষে। আওয়ামীলীগ কেয়ারটেকারের বিপক্ষে।

এবার যোগ-বিয়োগ করুন। ১৯৯০, ১৯৯৬, ২০১৪ কিংবা ২০১৮। জামায়াত সবসময় কেয়ারটেকারের পক্ষে। বিএনপি কখনও পক্ষে, কখনও বিপক্ষে। আওয়ামীলীগ কখনও পক্ষে, কখনও বিপক্ষে। বিএনপি যখন কেয়ারটেকার চায় জামায়াতের সাথে মিলে যায় তাদের দাবি, যখন বিপক্ষে যায় তখন মিলে না। আওয়ামীলীগের অবস্থাও তথৈবচ!

তো কি বুঝলেন? পল্টি মারবে আওয়ামীলীগ আর বিএনপি। আর নীতিহীন দল আখ্যায়িত হবে জামায়াত! ঐতিহাসিক ভুল করা দল বিবেচিত হবে জামায়াত! আর আপোসহীন নেত্রী হবেন বিএনপিনেত্রী, গণতন্ত্রের মানসকন্যা হবেন আওয়ামী নেত্রী। জামায়াত হবে পল্টিবাজ! যত দোষ নন্দঘোষ!

মুহাম্মাদ আবু সুফিয়ান।।

About banglamail

Check Also

দুই শতাধিক সফরসঙ্গী নিয়ে জাতিসঙ্ঘে গিয়ে প্রধানমন্ত্রীর বিশ্বরেকর্ড – ডক্টর তুহিন মালিক

এক : জাতিসঙ্ঘের অধিবেশনে যোগ দিতে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী এখন নিউ ইয়র্কে। জাতিসঙ্ঘ সাধারণ পরিষদে যোগ …