রাজশাহী বিশ্বদ্যিালয়ের ছাত্রলীগের নেতাকে চিনতে না পারায় শিক্ষার্থীকে মারধর

ছাত্রলীগের নেতাকে চিনতে না পারায় রাজশাহী বিশ্বদ্যিালয়ের (রাবি) এক শিক্ষার্থীকে মারধর করা হয়েছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। শুক্রবার বিকেলে বিশ্ববিদ্যালয়ের শাহ মখদুম হলের সামনে এ ঘটনা ঘটে।

মারধরের শিকার ফিরোজ আহমেদ বিশ্ববিদ্যালয়ের দর্শন বিভাগের চতুর্থ বর্ষের শিক্ষার্থী। তিনি শাহ মখদুম হলের (৩৩৭) নম্বর কক্ষে থাকেন। অভিযুক্ত কামরুজ্জামান কিরণ শাহ মখদুম হল শাখা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, বিশবিদ্যালয়ে জেল হত্যা দিবস উপলক্ষ্যে এক আলোচনা সভার আয়োজন করেছে রাজশাহী জেলা শাখার বঙ্গবন্ধু পরিষদ। সেখানে উপস্থিত ছিলেন বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশনের চেয়ারম্যান অধ্যাপক আব্দুল মান্নান, রাজশাহী মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি এ এইচ এম খায়রুজ্জামান লিটন প্রমুখ।

এই অনুষ্ঠানে যোগ দেয়ার কথা বলা হয় ফিরোজকে। কিরণ ফিরোজকে যাওয়ার জন্য বলেন। পরে কথা-কাটাকাটির একপর্যায়ে কিরণ ফিরোজকে চড়-থাপ্পড় মারেন।

এ বিষয়ে ভুক্তভোগী ফিরোজ আহমেদ জাগো নিউজকে বলেন, আগামীকাল শনিবার আমার পরীক্ষা আছে। সেজন্য আমার এক বন্ধু শিট নিতে বিকেলে আমার কাছে আসে। শিট ফটোকপি করে মূল কপি নিয়ে আসার জন্য আমি হলের সামনে ফটোস্ট্যাটের দোকানে যাই। এমন সময় কামরুজ্জামান কিরণ এসে আমাকে জিজ্ঞাসা করে আমি এই হলের শিক্ষার্থী কিনা। তখন হ্যাঁ বললে, অনুষ্ঠানে যেতে হবে সেজন্য তৈরি হয়ে আসতে বলেন।

কিন্তু পরীক্ষার কারণে আমি অনুষ্ঠানে যেতে অপারগতা প্রকাশ করি। তখন কিরণ আমাকে বলেন, আমাকে চিনিস? আমি না বোধক উত্তর দেয়ায় তিনি আমাকে সবার সামনে গালে থাপ্পড় মারেন। এরপর কথা-কাটাকাটিতে তিনি আবার আমাকে চড় থাপ্পড় মারেন। এ সময় সেখানে বেশকিছু নেতাকর্মী উপস্থিত ছিলেন।

মারধরের কথা স্বীকার করে কামরুজ্জামান কিরণ বলেন, ‘আমাকে না চেনার জন্য তাকে মেরেছি।’

বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রলীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি রাশেদুল ইসলাম রাঞ্জু বলেন, বিষয়টি আমি শুনেছি। কিরণের সঙ্গে ওই ছেলেটা খারাপ ব্যবহার করেছে। বিষয়টা মীমাংসা করবো।

jagonews24

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।