এবার নিজ দলের কর্মীর পায়ের রগ কাটলো ছাত্রলীগ !

জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের মাওলানা ভাসানী হলের ছাত্রলীগের কর্মীদের সঙ্গে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান হলের ছাত্রলীগের কর্মীদের সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। এ ঘটনায় মওলানা ভাসানী হলের ছাত্রলীগ কর্মী মো. জহির আহত হয়। তার পায়ের রগ কেটে দেয়া হয়েছে এবং মাথায় গুরুতর আঘাত করা হয়েছে।

মো. জহির পাবলিক হেলথ অ্যান্ড ইনফরমেটিক্স বিভাগের ৪১তম ব্যাচের শিক্ষার্থী বলে জানা গেছে। মঙ্গলবার রাত সাড়ে ১১টার দিকে বিশ্ববিদ্যালয়ের বটতলা এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।

এ বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয় সহকারী প্রক্টর সহকারী অধ্যাপক উজ্জ্বল কুমার মণ্ডল বলেন, “ঘটনা বিস্তারিত জেনে তদন্ত সাপেক্ষে ব্যবস্থা নেওয়া হবে। ”

বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের সভাপতি মো. জুয়েল রানা বলেন, “যারা দোষী তাদেরকে অবশ্যই শাস্তির আওতায় আনা হবে। ”
প্রতক্ষ্যদর্শীরা জানায়, কনসার্ট দেখতে বিশ্ববিদ্যালয়ের মুক্তমঞ্চে বসাকে কেন্দ্র করে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান হলের ছাত্রলীগের কর্মীদের সঙ্গে মাওলানা ভাসানী হলের ছাত্রলীগের কর্মীদের কথা কাটাকাটি হয়। এক পর্যায়ে মুক্তমঞ্চের পাশে দুই হলের ছাত্রলীগ কর্মীদের মধ্যে হাতাহাতি ও ধাওয়া পাল্টা-ধাওয়ার ঘটনা ঘটে।

পরবর্তীতে বিষয়টি সমঝোতার জন্য মাওলানা ভাসানী হলের ছাত্রলীগ কর্মীরা বটতলা এলাকায় জড়ো হয়। কিন্তু বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান হলের ছাত্রলীগের কর্মী শামীম মোল্লার অনুসারীরা দেশীয় অস্ত্র, রড ও পাইপ হাতে তাদের ওপর হামলা চালায়। এ সময় মো. জহির আহত হন।

এরপর আহত জহিরকে প্রথমে বিশ্ববিদ্যালয়ে মেডিকেল সেন্টারে প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়ে সাভার এনাম মেডিকেল হাসপাতালে পাঠানো হয়। বিশ্ববিদ্যালয়ের দায়িত্বরত চিকিৎসক নাজমুল হক শাহীন জানান, “জহিরের পায়ে রগ কেটে গেছে এবং মাথায় গুরুতর আঘাতের চিহ্ন রয়েছে। ”

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।