‘মাছ শিকারে গিয়ে দু’ছেলেকে পিটিয়ে হত্যা করি’: ঘাতক বাবা

সিলেট প্রতিনিধি

সিলেটের ওসমানীনগরের নাজিরবাজারে দুই শিশুসন্তানকে পিটিয়ে হত্যার দায় স্বীকার করে আদালতে জবানবন্দি দিয়েছেন বাবা ছাতির আলী। বৃহস্পতিবার সিলেটের সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট প্রথম আদালতের বিচারক মো. নজরুল ইসলাম তার জবানবন্দি রেকর্ড করেন।

বেলা সাড়ে ১২টায় বিচারকের খাসকামরায় জবানবন্দিতে নিজ সন্তানদের লোমহর্ষকভাবে হত্যার বর্ণনা দিতে গিয়ে ছাতির আলী জানান, তার মাথার সমস্যা আছে। মাছ শিকার করতে নিয়ে গিয়ে দুই ছেলেকে খুচিয়ে ও পিটিয়ে হত্যা করেন। এরপর লাশ ডোবায় ফেলে রেখে যান।

সিলেটের ওসমানীনগর থানার ওসি আবদুল আউয়াল চৌধুরী স্বীকারোক্তির সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, ‘‘আদালতে ছাতির আলী জানিয়েছেন, গত সোমবার দুপুরে শিশু রুজেল ও মাছুমকে নিয়ে মাছ ধরার উদ্দেশে বাড়ি থেকে বের হন। বেলা আড়াইটার দিকে কিছু মাছ দিয়ে রুজেলকে বাড়ি পাঠিয়ে দেন। এ সময় সুপারি গাছের তৈরি সুচালো অস্ত্র দিয়ে মাছুমকে খুচিয়ে ও পিটিয়ে হত্যা করেন। রুজেল ফিরে এসে ভাইকে খোঁজ করলে তাকেও একই কায়দায় পিটিয়ে হত্যা করে লাশ দুটো ডোবায় ফেলে বাড়ির পাশের আরেক পরিত্যক্ত বাড়িতে আত্মগোপন করেন।

সন্ধ্যা পর্যন্ত ছেলেদের নিয়ে বাড়িতে না ফেরায় ছাতির আলীর স্ত্রী নুরবিন বেগম ছেলেদের খোঁজে বাড়ি থেকে বের হন। অনেক খোঁজাখুঁজির পর সন্ধ্যা ৭টার দিকে গ্রামের পাশের ডোবায় লাশ দেখতে পান। খবর পেয়ে থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে লাশ দুটি উদ্ধার করে। লাশের গায়ে আঘাতের চিহ্ন ছিল। ঘটনার পর থেকে ছাতির আলী পলাতক ছিলেন।

বুধবার সকাল ৬টায় ঘটনাস্থলের পাশে মন্তাজ উল্যার পরিত্যক্ত বাড়ি থেকে এলাকাবাসী তাকে আটক করে পুলিশে সোপর্দ করেন। সন্ধ্যায় ছাতির আলীর স্ত্রী নুরবিন বেগম বাদী হয়ে ছাতির আলীকে একমাত্র আসামি করে মামলা করেন।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।