কলেজছাত্রীর বাবাকে ফাঁসাতে গিয়ে ফাঁসলেন যুবলীগ নেতা

বিয়ের প্রস্তাব প্রত্যাখান করায় মাদকদ্রব্য দিয়ে কলেজছাত্রীর বাবাকে ফাঁসাতে গিয়ে নিজেই ফেঁসে গেলেন যুবলীগ নেতা। বৃহস্পতিবার দুপুরে নীলফামারীর ডিমলা উপজেলায় এ ঘটনা ঘটে।

পুলিশ জানায়, খগাখড়িবাড়ি ইউনিয়নের দোহলপাড়া গ্রামের আবু বক্কর সিদ্দিকের ছেলে যুবলীগ নেতা জেনারুল ইসলাম (৩৫) ডিমলা মহিলা কলেজের এইচএসসি ২য় বর্ষের এক ছাত্রী ও ছাতনাই বালাপাড়া গ্রামের শাহজান আলীর মেয়েকে বিয়ের প্রস্তাব দেয়।

জেনারুল ইসলাম খগাখড়িবাড়ী ইউনিয়নের ১নং ওয়ার্ডের যুবলীগ সভাপতি মর্মে ইউনিয়ন সভাপতি আরিফুল রহমান আরিফ বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

জানা যায়, জেনারুল দুই সন্তানের বাবা হয়েও কলেজছাত্রীকে বিয়ের প্রস্তাব দেয়। বিয়ের প্রস্তাব প্রত্যাখান করায় মেয়ের বাবাকে ফাঁসানোর জন্য বুধবার সন্ধ্যায় ২৫ পিস ইয়ারা ও ২০ পুরিয়া গাঁজা কলেজছাত্রীর বাড়িতে রেখে আসেন।

রাতে ডিমলা থানা পুলিশের উপ-পরিদর্শক (এসআই) শাহাবুদ্দিন অভিযান চালিয়ে গাঁজা ও ইয়াবা উদ্ধার করে। এ সময় যুবলীগ নেতা জেনারুল পুলিশের সঙ্গে ছিলেন। পরে কলেজ  ছাত্রীর অভিযোগের ভিত্তিতে জেনারুলকে পুলিশ আটক করে।

বৃহস্পতিবার দুপুরে নীলফামারীর সহকারী পুলিশ সুপার (সদর সার্কেল) ফিরোজ কবীর কলেজছাত্রীর সামনে অভিযুক্ত জেনারুলকে মুখোমুখি জিজ্ঞাবাদ করলে আসল ঘটনা বেরিয়ে আসে।

তিনি  বলেন, জেনারুল ওই কলেজছাত্রীকে বিয়ের প্রস্তাব দেয়। প্রস্তাব প্রত্যাখান করায় মাদকদ্রব্য দিয়ে ফাঁসানোর চেষ্টা করে নিজেই ফেঁসে গেছে।

ডিমলা থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোয়াজ্জেম হোসেন বলেন, আটক জেনারুল ইসলামের বিরুদ্ধে মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনে মামলার প্রস্তুতি চলছে।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।