ছাতকে ৫দিনে পাঁচ যুবতি ও দু’যুবকের অস্বাভাবিক মৃত্যু

রবিউল ইসলাম তারেক, সুনামগঞ্জেঃ সুনামগঞ্জের ছাতকে ৫দিনের ব্যবধানে ৭জনের অস্বাভাবিক মৃত্যুর ঘটনা ঘটেছে। এদের মধ্যে গলায় ফাঁস দিয়ে যুবক-যুবতিসহ ৫জন, কীটনাশক খেয়ে অপর এক যুবতি ও দূর্ঘটনায় ১২বছরের এক বালকের মৃত্যু ঘটে। এতে দেখা যায়, ১নভেম্বর থেকে ৫নভেম্বর পর্যন্ত গলায় ফাঁস দিয়ে ৫জনও বিষ পানে একজনসহ ৫দিনে মোট ৬জন আত্মহত্যা করেছে। এদের মধ্যে ৪জন অবিবাহিত যুবতি, একজন তালাকপ্রাপ্তা, একজন ১৮বছরের যুবকও ১২বছরের শিশু রয়েছে। জানা যায়, ৫নভেম্বর উপজেলার দক্ষিণ খুরমা ইউপির মনিরজ্ঞাতি (নোয়াগাঁও) গ্রামের আজিজুল ইসলামের মেয়ে শাহেদা বেগম (২০) ওড়না দিয়ে ঘরের তীরের সাথে গলায় ফাঁস লাগিয়ে আত্মহত্যা করে।

শাহেদা বেগম সিংচাপইড় গ্রামের নজরুল ইসলামের তালাকপ্রাপ্তা স্ত্রী বলে জানা গেছে। ৪নভেম্বর দিন-দুপুরে ওড়না দিয়ে ঘরের তীরের সাথে গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করেছে দোলারবাজার ইউপির দক্ষিণ কুর্শী গ্রামের দিনমজুর মিরাস আলীর মেয়ে খুদেজা বেগম (১২)। ২নভেম্বর পৌরসভার তাতিকোনা গ্রামের খুশিমন দাসের মেয়ে বিসকা রানী দাস (১৫) রশি দিয়ে বসত ঘরের তীরের সাথে, ১নভেম্বর রাতে কালারুকা ইউপির খাইরগাঁও গ্রামের আফরোজ আলীর মেয়ে শিউলী বেগম (১৮) গোয়াল ঘরের পেছনের একটি আমগাছের ডালেও ২নভেম্বর দোলারবাজার ইউপির আলমপুর গ্রামের আবদুল মছব্বিরের পুত্র বুরহান উদ্দিন (১৮) বসত ঘরের তীরের সাথে গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করে।

২নভেম্বর রাতে জাউয়া বাজার ইউপির ঝামক গ্রামের আব্দুল ওয়াহিদের মেয়ে আম্বিয়া বেগম (১৮) কীটনাশক খেয়ে আত্মহত্যা করে। এছাড়া ১নভেম্বর গোবিন্দগঞ্জ-সৈদেরগাঁও ইউপির গোয়াশপুর গ্রামের ইদ্রিছ আলীর পুত্র মাছুম আহমদ (১২) তার মাকে সাথে নিয়ে গোবিন্দগঞ্জ ভিক্ষে করতে আসার পথে সিলেট-সুনামগঞ্জ সড়কের পূর্ব সুহিতপুর এলাকায় মিনিবাসের চাকায় পিষ্ট হয়ে ঘটনাস্থলেই মারা যায়।

এব্যাপারে থানায় পৃথক ইউডি মামলা দায়ের করা হয়েছে। তবে কীটনাশক খেয়ে মৃত্যুসহ ৬টি আত্মহত্যার ঘটনার কোন কারন জানা যায়নি।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।