গীতা ও নৈতিক শিক্ষা পারে একজন আদর্শবান মানুষ হিসেবে প্রতিষ্ঠিত করতে

একে.এম নাজিম, হাটহাজারীঃ সনাতন সম্প্রদায়ের অন্যতম তীর্থপীঠ উত্তর চট্টলার হাটহাজারী ধলইস্থ শীলবাড়ি প্রাঙ্গণে জাগৃতি যুব সংঘের আয়োজনে ও বাংলাদেশ গীতা শিক্ষা কমিটি (বাগীশিক) ধলই ইউনিয়ন সংসদের উদ্যোগে সার্বজনীন শ্রীশ্রী জগদ্ধাত্রী পূজো উপলক্ষে শ্রীশ্রী জাগৃতি গীতা স্কুলের শুভ উদ্বোধন ও ছাত্রছাত্রীদের মাঝে গীতা এবং শিক্ষা সামগ্রী বিতরণ করা হয়। গত বুধবার (৯ নভেম্বর) শ্রীশ্রী জাগৃতি গীতা স্কুলের শুভ উদ্বোধন ও ছাত্রছাত্রীদের মাঝে গীতা এবং শিক্ষা সামগ্রী বিতরণ উপলক্ষে আয়োজিত অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন বাগীশিক-ধলই ইউনিয়ন সংসদের সভাপতি শ্রী সৃজন দাশ।

এতে অনুষ্ঠানের আর্শবাদক ও উদ্বোধক ছিলেন প-িত শ্রী সুকান্ত চক্রবর্তী। প্রধান অতিথি হাটহাজারী প্রেসক্লাব সভাপতি কেশব কুমার বড়–য়া। আলোকিত অতিথি বাগীশিক-চট্টগ্রাম উত্তরজেলা সংসদের সাংগঠনিক সম্পাদক শ্রী প্রিয়াশীষ চক্রবর্তী। প্রধান বক্তা ছিলেন বাগীশিক-হাটহাজারী সংসদের সভাপতি মাস্টার নারায়ণ গোস্বামী।
সংগঠনের যুগ্ম-সম্পাদক শ্রী সজল কান্তি নাথ এর সঞ্চালনায় অনুষ্ঠিত সভার শুরুতে পবিত্র গীতাপাঠ করেন বাগীশিক-ধলই সংসদের মহিলা সম্পাদিকা মুন্নী নাথ। বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন বাগীশিক-হাটহাজারী সংসদের সহ-সভাপতি শ্রীপাদ গঙ্গাপদ গোস্বামী, সাধারণ সম্পাদক শ্রী সুজন বণিক, সাংগঠনিক সম্পাদক শ্রী শ্যামসুন্দর বৈষ্ণব, মাস্টার অরুণ কুমার দে। অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য রাখেন জাগৃতি যুব সংঘের সভাপতি ভুপাল চেীধুরী ও সাধারণ সম্পাদক বিকাশ কান্তি চৌধুরী। এতে অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন বাগীশিক-ধলই সংসদের সহ-সভাপতি দীপু দাশ, সাধারণ সম্পাদক রূপন বৈষ্ণব, মাস্টার রুপন কুমার নাথ, শিপন নাথ, আশীষ রায়, শ্রীকান্ত বৈদ্য, রানা শীল, সমীক চৌধুরী প্রমুখ। পরিশেষে ছাত্রীছাত্রীদের হাতে গীতা ও শিক্ষা সামগ্রী তুলে দেন অতিথিবৃন্দ।

সভায় বক্তারা বলেন, দেশের বিরাজমান পরিস্থিতি মোকাবেলায় কিংবা অবক্ষয় রোধে সর্ব প্রথম যুবসমাজকে এগিয়ে আসতে হবে। ইতিহাস পর্যালোচনায় প্রতীয়মান হয় আজকের যে স্বাধীন বাংলাদেশ তার মূলেও যুব-তরুণ সমাজের ভূমিকায় মুখ্য ছিল। তারাই সর্বাগ্রে দেশকে স্বাধীন করার লক্ষ্যে বহুমূখী আন্দোলন গড়ে তোলেছিল। গীতা ও নৈতিক শিক্ষায় পারে একজন আদর্শবান মানুষ হিসেবে প্রতিষ্ঠিত করতে। এই শিক্ষার মাধ্যমে সমাজ বিনির্মাণ করতে পারলেই দেশে শান্তি প্রতিষ্ঠা সম্ভব হবে। সে নিরীক্ষে একটি সুশীল সমাজ বিনির্মাণের প্রয়াসে তরুণ ছাত্র ও যুব সমাজকে কর্মোদ্দীপ্ত করা লক্ষ্যে বাগীশিকের অগ্রযাত্রা। দেশের প্রতিটি ধনাঢ্য ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠান এই শিক্ষা কার্যক্রমকে অব্যাহত রাখার লক্ষ্যে বাগীশিক কে সাহার্য্য ও সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দিলে দেশে স্বত:স্ফূর্ত একটি পরিবর্তন সম্ভব হবে বলে আমাদের বিশ্বাস।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।