পর্যটকদের জন্য উম্মুক্ত হচ্ছে স্বর্ণমন্দিরের দ্বার

ওমর ফারুক, বান্দরবান প্রতিনিধিঃ দীর্ঘ নয় মাস বন্ধ থাকার পর চলতি মাসের ১৬ নভেম্বর থেকে পর্যটকদের জন্য উন্মুক্ত হচ্ছে স্বর্ণমন্দিরের দ্বার। বান্দরবানে ভ্রমন পিপাসু পর্যটকদের কথা বিবেচনা করে স্থানীয় সাংসদ ও প্রশাসনের অনুরোধের প্রেক্ষিতে কর্তৃপক্ষ এই সিদ্ধান্ত নিয়েছেন।

বৌদ্ধ ধাতু জাদিতে (স্বর্ণ মন্দির) জুতা নিয়ে প্রবেশ, মূর্তির সাথে ব্যঙ্গ ভঙ্গিতে ছবি তোলা, পবিত্রতা নষ্ট করা ও কর্তৃপক্ষের সাথে কিছু পর্যটকের খারাফ আচরনের ফলে গত ২০ ফেব্রুয়ারি থেকে পর্যটকদের ভ্রমণে নিষেধাজ্ঞা আরোপ করে স্বর্ণমন্দির কর্তৃপক্ষ।

বান্দরবানের জেলা প্রশাসক দিলীপ কুমার বণিক জানান, আগামী ১৬ নভেম্বর সকাল ১০ঘটিকা থেকে স্বর্ণমন্দির জাদিটি পর্যটকদের জন্য খুলে দেয়া হবে।
গত রবিবার (১৩নভেম্বর) পার্বত্য চট্টগ্রাম বিষয়ক মন্ত্রনালয়ের প্রতিমন্ত্রী বীর বাহাদুর উশৈসিং এর বাসভবনে যৌথ সভা শেষে কর্তৃপক্ষ এ সিদ্ধান্ত নেয়।

সভায় প্রতিমন্ত্রী ছাড়াও জেলা ও দায়রা জজ শফিকুর রহমান, জেলা প্রশাসক দিলীপ কুমার বণিক, পুলিশ সুপার সনজিৎ কুমার রায়সহ অন্যান্য কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

মন্দির কর্তৃপক্ষের প্রতিনিধি বাচ মং মারমা জানান, “স্বর্ণমন্দিরটি পর্যটকদের জন্য সকাল ১০ঘটিকা হতে সন্ধ্যা ৬ঘটিকা পর্যন্ত খোলা থাকবে। তবে দুপুরে ২ ঘন্টা বন্ধ থাকবে” তিনি আরো জানান, বৈঠকে স্বর্ণ জাদির প্রতিষ্ঠাতা উপঞঞা জোত মহাথেরো (উ চ হ্লা ভান্তে) পর্যটকদের জন্য সেটি খুলে দেওয়ার সম্মতি দিয়েছেন”

প্রসঙ্গত, ২০০০ সালে বান্দরবানের পৌরসভার শেষপ্রান্তে ২নং কুহালং উইনিয়নের পুলপাড়ায় বৌদ্ধ সম্প্রদায়ের ধর্মীয় নেতা উপঞঞা জোত মাহাথেরো স্বর্ণ মন্দির প্রতিষ্ঠা করেন।

স্বর্ণমন্দির দেশ বিদেশের ভ্রমন পিপাসু পর্যটকদের কাছে বান্দরবানের প্রধান দর্শনীয় স্থান হিসাবে ইতিমধ্যে পরিচিত পায়। প্রতিদিন হাজারো ধর্মানুরাগীর ও পর্যটক এ তীর্থস্থানের সৌন্দর্য উপভোগ করেন।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।