হবিগঞ্জের ৩টি মসজিদে আগুন – স্থানীয় পুলিশ সুপার জয়দেব কুমার ভদ্র !

হবিগঞ্জের ৩টি মসজিদে রহস্যজনক অগ্নিকান্ডের ঘটনা ঘটেছে। রবিবার সন্ধ্যার দিকে এ ঘটনাটি ঘটে। খবর পেয়ে তাৎক্ষণিক ঘটনাস্থলে ছুটে যান হবিগঞ্জের জেলা প্রশাসক সাবিনা আলম ও পুলিশ সুপার জয়দেব কুমার ভদ্র। মোতায়েন করা হয় বিপুল সংখ্যক পুলিশ। বিষয়টি যাতে কেউ ভিন্নখাতে প্রবাহিত না করতে পারে এবং আইনশৃঙ্খলার অবনতি না হয় সেদিক বিবেচনায় রেখে পুলিশের পক্ষ থেকে সব ধরণের ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়। এ সময় পুলিশ প্রশাসনের পক্ষ থেকে ৩টি মসজিদে ১০টি করে পবিত্র কোরআন শরীফ প্রদান করা হয়।

ধারণা করা হচ্ছে কোন দুষ্টচক্র দেশের সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি বিনষ্ট করার মানসিকতা নিয়ে এমন অপকর্ম করেছে।

জানা যায়, হবিগঞ্জ সদর উপজেলার ভাঙ্গাপুল জামে মসজিদ, পশ্চিম ভাদৈ জামে মসজিদ ও ধুলিয়া খাল শাহজালাল জামে মসজিদে রবিবার সন্ধ্যার দিকে কে বা করা মসজিদে আগুন লাগিয়ে দেয়। স্থানীয় লোকজন আগুন দেখতে পেয়ে তাক্ষনিকভাবে আগুন নিয়ন্ত্রনে আনে। এ ব্যাপারে পশ্চিম ভাদৈ জামে মসজিদ পরিচালনা কমিটির সাধারণ সম্পাদক আব্দুল মুকিত বলেন, কে বা কারা এ ঘটনা ঘটিয়েছে তা সঠিক করে বলা যাচ্ছে না।

আমতলী শাহজালাল জামে মসজিদের ইমাম হাফেজ মিজানুর রহমান জানান, আসরের নামাজ পড়তে গিয়ে দেখা যায় মসজিদের ভিতরে কোরআন শরীফ রাখার সেলফে আগুন।

আশার কথা হলো এই ঘটনায় আইন শৃংখলা পরিস্থিতি যাতে অবনতি না হয় সেইদিক বিবেচনায় রেখে সংবাদ পরিবেশনে সাংবাদিকরাও ছিলেন খুবই সতর্ক । অন্যদিকে প্রশাসনের তড়িৎ পদক্ষেপে সাধারণ মানুষও ঘটনাটি যে ষড়যন্ত্র তা বুঝতে সক্ষম হয়েছেন।

এ ব্যাপারে পুলিশ সুপার জয়দেব কুমার ভদ্র বলেন, ঘটনাটি রহস্যজনক। কিছুদিন পূর্বে এক পাগল ভাদৈ গ্রামে মসজিদে আগুন লাগিয়ে ছিল। তবে ৩টি মসজিদে আগুন দেয়ায় বিষয়টি রহস্যজনক মনে হচ্ছে। কেউ উদ্দেশ্যমূলক ঘটনাটি ঘটিয়ে থাকলে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে। পুলিশের পক্ষ থেকে তদন্ত চলছে। তিনি এ ব্যাপারে সকল ধর্য্য ধারন করতে আহ্বান জানান।

১ টি মন্তব্য:

  • নভেম্বর 29, 2016 at 11:09 অপরাহ্ন
    Permalink

    it is the digital bangladesh of BAKSAL goverment.

    Reply

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।