ইসলামিক রিসার্চ ফাউন্ডেশন’ কে বেআইনি সংস্থা বলে ঘোষণা করার সিদ্ধান্ত মোদী সরকারের !

ইসলামি ধর্মপ্রচারক জাকির নায়েকের মুম্বই-ভিত্তিক ইসলামিক রিসার্চ ফাউন্ডশন নামের এনজিও-টিকে নিষিদ্ধ ঘোষণা করতে চলেছে মোদি সরকার৷ তাঁর বিরুদ্ধে একাধিক অভিযোগের ভিত্তিতেই এই সিদ্ধান্ত নিয়েছে ভারত৷ খবর ডিডব্লিউর।

বেআইনি কার্যকলাপ নিবারণ আইন অনুসারে, বিতর্কিত ইসলামি ধর্মপ্রচারক জাকির আবদুল করিম নায়েকের স্বেচ্ছাসেবী সংস্থা ‘ইসলামিক রিসার্চ ফাউন্ডেশন’ বা আইআরএফ-কে বেআইনি সংস্থা বলে ঘোষণা করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে মোদী সরকার৷ এই মর্মে কেন্দ্রীয় মন্ত্রিসভার এক খসড়া প্রস্তাব চূড়ান্ত করা হয়েছে এবং খুব শীঘ্রই তা মন্ত্রিসভার অনুমোদন পাবে বলে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সূত্রে বলা হয়েছে৷ এর কারণ হিসেবে বিভিন্ন অভিযোগের উল্লেখ করা হয়েছে৷ এই যেমন, জাকির নায়েকের ধর্মীয় ভাষণে সাম্প্রদায়িক প্ররোচনা, পিস টিভিতে তাঁর আপত্তিকর ভূমিকা, পিস টিভিতে প্রচার করা ভাষণে সাম্প্রদায়িকতা এবং জেহাদের উসকানি দেওয়া ইত্যাদি৷ শুধু তাই নয়, নায়েক নাকি তাঁর বক্তব্যে বিশ্বের সব মুসলিমকে সন্ত্রাসী হবার ডাক দিয়েছিলেন – এমনটাই অভিযোগ স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের৷

প্রসঙ্গত, এ বছরের ১ জুলাই ঢাকার গুলশনের একটি কাফেতে সন্ত্রাসী হামলার পেছনে জাকির নায়েকের ভূমিকার প্রভাব ছিল বলে মনে করা হচ্ছে৷ হামলাকারীদের মধ্যে মৃত এক সন্ত্রাসী রোহন ইমতিয়াজের ফেসবুকে জাকিরের নায়েকের ভাষণের যে উদ্ধৃতি আছে, তাতে সব মুসলিমকে জেহাদি হবার ডাক রয়েছে এবং তাতে ইমতিয়াজ দৃশ্যত প্রভাবিত হয়৷ ২০১১ সাল থেকে পিস টিভির বাংলা চ্যানেলের অনুষ্ঠান সম্প্রচারিত হয় মূলত বাংলাদেশ, মধ্যপ্রাচ্য এবং ভারতে৷ এছাড়া, উর্দু, চীনা ভাষাসহ অনেক ভাষাতেই পিস টিভির ধর্মশিক্ষা-ভিত্তিক অনুষ্ঠান প্রচারিত হয় উপগ্রহ, কেবল টিভি বং ইন্টারনেট নেটওয়ার্কের মাধ্যমে৷ তবে ঢাকায় সন্ত্রাসীকাণ্ডের পর বাংলাদেশ ও ভারতে পিস টিভির অনুষ্ঠান সম্প্রচার নিষিদ্ধ করা হয়৷ বেআইনি কার্যকলাপ নিবারক আইন অনুসারে, সামাজিক ও সাম্প্রদায়িক শান্তির পক্ষে বিপজ্জনক কার্যকলাপকে শাস্তিযোগ্য অপরাধ বলে গণ্য করা হয়৷ সেই আইনেই জাকির নায়েকের আইআরএফ দাতব্য প্রতিষ্ঠানে তালা লাগানো হবে বেআইনি ঘোষণা করে৷

জাকির নায়েকের এনজিও ইসলামিক রিসার্চ ফাউন্ডেশনের পক্ষ থেকে ৫০ লাখ টাকার অনুদান পায় সোনিয়া গান্ধী পরিচালিত রাজীব গান্ধী চ্যারিটেবল ট্রাস্ট৷ তাই নায়েকের বেআইনি গতিবিধি প্রকাশ্যে আসায় ঐ টাকা নিয়ে শুরু হয়েছে রাজনৈতিক তরজা৷

ভারতের কেরালা রাজ্য থেকে গত জুলাই মাসে ২১ জন যুবককে জঙ্গি গোষ্ঠী ইসলামিক স্টেটে যোগ দিতে ভারত থেকে নিয়ে যাওয়া হয়৷ এদের একজনের ভাইয়ের অভিযোগ, নায়েকের আইআরএফ-এর এক শীর্ষ ব্যক্তি নাকি তাঁর ভাইকে ইসলাম ধর্ম গ্রহণে বাধ্য করেন৷ এই মর্মে তিনি মামলাও করেন৷ ভারতের গোয়েন্দা সংস্থাও ধরা পড়া জনা পঞ্চাশেক জঙ্গিকে জেরা করার পর জাকিরের বিরুদ্ধে সন্ত্রাসের অভিযোগেও মামলা দায়ের করতে চলেছে৷ পাশাপাশি গোয়েন্দা বিভাগের বক্তব্য, পিস টিভির অনুষ্ঠানে প্রচারিত জাকিরের ধর্মীয় সব ভাষণ ব্যাখ্যা করলে স্পষ্ট বোঝা যায় যে, এতে জেহাদি হবার প্ররোচনা আছে৷ কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সূত্রে বলা হয়, মহারাষ্ট্র সরকার এবং কেন্দ্রীয় গোয়েন্দা সূত্রে পাওয়া যেসব অকাট্য এবং আদালতে প্রমাণযোগ্য তথ্যপ্রমাণ সরকারের হাতে এসেছে, তার ভিত্তিতে জাকির নায়েকের ইসলামিক রিসার্চ ফাউন্ডেশনকে বেআইনি সংস্থা বলে ঘোষণা করা হবে৷ জাকির নায়েকের বিরুদ্ধে অবশ্য ভারতীয় দণ্ডবিধির একাধিক ধারায় আগেই মামলা দায়ের করা হয়েছে৷

এছাড়া জাকির নায়েকের হারমনি মিডিয়া পরিচালিত ব্রিটেনস্থিত আইআরএফ ইন্টারন্যাশনাল ফান্ড থেকে একটা মোটা রকম অর্থ আসে মুম্বইয়ের তহবিলে৷ এরই প্রেক্ষিতে বিদেশি অনুদান আইনের অধীনে জাকিরের বিদেশি অনুদান গ্রহণের লাইসেন্স বাতিল করার প্রক্রিয়া শুরু হয়েছে৷ ফলে এবার বিদেশি অর্থ আসার পথ বন্ধ হয়ে যাবে৷ আইআরএফ-এর দু’টি দাতব্য শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ওপর এর প্রভাব কী পড়বে, তাও খতিয়ে দেখা হয়৷ বিতর্কিত এই ধর্ম প্রচারকের ব্রিটেন ও ক্যানাডায় প্রবেশাধিকার নেই৷ তবে মালেশিয়ায় নিষিদ্ধ ১৬ জন ধর্ম প্রচারকের মধ্যে জাকির নায়েক অন্যতম৷

তাঁর বিরুদ্ধে আনা মোদী সরকারের বিভিন্ন অভিযোগ কানে যেতেই জাকির নিজের বিদেশে থাকার মেয়াদ বাড়িয়ে চলেছেন৷ তাঁর আশঙ্কা, ভারতে ফিরলেই সম্ভবত তাঁকে গ্রেপ্তার করা হবে৷ এই কারণে বাবার শেষকৃত্য অনুষ্ঠানেও উপস্থিত থাকেননি নায়েক৷

দিন কয়েক আগে ৮৭ বছর বয়সে জাকিরের পিতা দেহ রাখেন৷ মহারাষ্ট্রের নামজাদা মানসিকরোগের একজন চিকিৎসক এবং শিক্ষাবিদ ছিলেন তিনি৷

সূত্র: ডয়েচে ভেলে

১ টি মন্তব্য:

  • নভেম্বর 2, 2016 at 3:19 অপরাহ্ন
    Permalink

    Modi jotana Hindu tar chaite muslim biddeshi.

    Reply

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।