ট্রাম্পের এক গুচ্ছ বিতর্কিত মন্তব্য

এক বছর আগে প্রেসিডেন্ট পদে নিজের প্রার্থিতা ঘোষণার পর বিতর্কিত নানা মন্তব‌্যে-বক্তব‌্যে দ্রুতই আলোচনায় উঠে আসেন ডোনাল্ড ট্রাম্প।
প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী হিলারি ক্লিনটন থেকে শুরু করে প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামা পর্যন্ত কেউই তার বক্রোক্তি থেকে রক্ষা পায়নি; এমনকি নিজের দলের টেড ক্রুজকে নিয়েও তার মন্তব‌্য ছাড়িয়েছিল অশ্লীলতার সীমা।

রিপাবলিকান দল মনোনয়ন না দিলে দাঙ্গা বাঁধবে কিংবা ভোটে না জিতলে ফল মানব না- এরকম নজিরবিহীন কথাও এসেছে এই প্রেসিডেন্ট প্রার্থীর কাছ থেকে।

আলোচনা-সমালোচনার পথ পেরিয়ে চমক দেখিয়ে ভোটে জিতে হোয়াইট হাউজের ঠিকানা খুঁজে নিয়েছেন ৭০ বছর বয়সী ধনকুবের ট্রাম্প। সাদা বাড়িতে যেতে তার সফলতা এখন অনেকটাই আড়াল করে দিয়েছে সেই কথাগুলো।

“হিলারি ক্লিনটন যদি নিজের স্বামীকে সন্তুষ্ট করতে না পারেন, তবে তিনি কী করে ভাবতে পারেন যে আমেরিকাকে সন্তুষ্ট করতে পারবেন”
[হিলারির স্বামী সাব্কে প্রেসিডেন্ট বিল ক্লিনটনের নারী কেলেঙ্কারির দিকে ইঙ্গিত করে এই টুইটটি করেছিলেন ট্রাম্প, কিন্তু করার পরই তা আবার মুছে দিয়েছিলেন, কিন্তু ততক্ষণে তা ছড়িয়ে পড়ে, আর তাতে সমালোচনার মুখে পড়তে হয় তাকে]
.
“টেড ক্রুজ, হুঁশিয়ার। নইলে তোমার স্ত্রীর হাড়ি হাটে ভেঙে দেব”

[রিপাবলিকান দলের মনোনয়ন প্রত‌্যাশী ছিলেন ক্রুজ, ইন্টারনেটে মেলানিয়ার একটি নগ্ন ছবি ছড়িয়ে পড়লে তার জন‌্য ক্রুজকে দায়ী করে টুইটারে এই হুমকি দিয়েছিলেন ট্রাম্প]

“আমি তো বলিই, ইভাঙ্কা যদি আমার মেয়ে না হত, তবে হয়ত আমি তার সঙ্গে ডেট করতাম”
[প্রথম স্ত্রী ইভানা জেলনিকোভার মেয়ে ৩৪ বছর বয়সী ইভাঙ্কা প্রাণপন খেটেছিলেন, যার প্রশংসা করেছেন হবু প্রেসিডেন্ট বাবাও]
.
“আরিয়ানা হাফিংটন দেখতে বদখত, ভেতর-বাইর- সব দিকেই। আমি পুরোপুরি বুঝতে পারি, কেন তার স্বামী তাকে ছেড়ে চলে গেছে, সে ঠিক কাজটিই করেছে”

[জনপ্রিয় ইন্টারনেট সংবাদপত্র হাফিংটন পোস্টের প্রতিষ্ঠাতাকে নিয়ে রিপাবলিকান প্রেসিডেন্ট প্রার্থীর মন্তব‌্যে নারীদের মধ‌্যে সমালোচনার ঝড় বয়ে যায়]

“আমি জানি আমার সঙ্গে অন‌্য প্রতিদ্বন্দ্বীদের পার্থ‌ক‌্যটা কোথায়? তা হল আমি অনেক বেশি সৎ আর আমার স্ত্রী অনেক সুন্দরী”
[অ‌্যাথলেট প্রথম স্ত্রীর পর মডেল মার্লা ম্যাপলসের সঙ্গে ছয় বছর সংসার করার স্লাভ মডেল মেলানিয়াকে নিয়ে সংসার করছেন এখন ট্রাম্প]
.
“খুবই নির্ভরযোগ‌্য একটি সূত্র অফিসে এসে আমাকে বলে গেছে যে বারাক ওবামার জন্ম সনদটি জাল”
[ট্রাম্পের পীড়াপীড়িতে নিজের জন্মসনদ প্রকাশ করতে হয়েছিল প্রেসিডেন্ট ওবামাকে। ওবার জন্ম যুক্তরাষ্ট্রেই হয়েছে বলে প্রমাণ পাওয়া পর ট্রাম্প অজুহাত দেখান, হিলারিই বিষয়টি প্রথম তুলেছিলেন]

“এখন একটা বড় সমস‌্যা হল যে রাজনীতিটা খুব নোংরা হয়ে গেছে, ভাল মানুষরা এখন দেশ শাসনে আসতে চান না”
[ট্রাম্প যখন একথা বলছেন, তখন তার বিরুদ্ধেই রাজনীতিতে নোংরামির বিস্তার ঘটানোর জন‌্য দায়ী করা হয়]
“নিউ ইয়র্কে এখন খুব ঠাণ্ডা, তুষারপাত হচ্ছে, এখন দরকার বৈশ্বিক ঊষ্ণতা”

[অনেকেই বলেন,জলবায়ু পরিবর্তনের প্রভাবের মতো গুরুত্বপূর্ণ বিষয়কে হালকা করে দেখানোর মতো কাজ ট্রাম্পের পক্ষেই সাজে]
.
“আমার কাছে সৌন্দর্য হল আমি বেশ ধনী”
[পারিবারিক আবাসন ব‌্যবসা দিয়ে শুরু করে ক সময় বিনোদন জগতেও সাম্রাজ্যের বিস্তার ঘটান ডোনাল্ড ট্রাম্প। মিস ইউনিভার্সসহ সৌন্দর্য প্রতিযোগিতার আয়োজনও করেন তিনি। ফোর্বস বলছে, তার সম্পদের পরিমাণ বর্তমানে ৩৭০ কোটি ডলারের উপরে]
.
“আমি ভদ্রলোক”
[হিলারির সঙ্গে তৃতীয় বিতর্কের এক পর্যায়ে নিজেকে ভদ্রলোক দাবি করেন ট্রাম্প॥ আর তারপর স্ত্রী মেলানিয়ায়ও স্বামীকে একই সনদ দেন]

বিডিনিউজ

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।