ভারত থেকে আসা অস্ত্র ঢাকায় বিক্রি হয় ৮০ হাজার টাকায়

যশোরের বেনাপোল সীমান্ত থেকে কয়েক হাত বদল করে অস্ত্র আসে ঢাকায়। তারপর ঢাকার বিভিন্ন সন্ত্রাসীগ্রুপের কাছে প্রতিটি অস্ত্র ৮০ হাজার টাকায় বিক্রি করা হয়। তবে সীমান্ত এলাকায় কেউ অস্ত্র কিনতে চাইলে তা আরও কম দামে বিক্রি করা হতো। দশটি অস্ত্রসহ গ্রেফতারের পর প্রাথমিক জিজ্ঞাবাদে এসব তথ্য জানিয়েছে অস্ত্র ব্যবসায়ী ভারতীয় নাগরিক খাইরুল মণ্ডল ওরফে শরীফুল মণ্ডল ওরফে শরীফুল (৪১)। সোমবার রাতে তাকে রাজধানীর গাবতলী এলাকা থেকে গ্রেফতার করে ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের একটি দল। মঙ্গলবার তাকে আদালতে সোপর্দ করে ১০ দিনের রিমান্ড আবেদন জানায় পুলিশ। আদালত শুনানি শেষে তিন দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছে।

এর আগে সোমবার রাতেই কয়েকজন সহযোগীসহ খাইরুলের বিরুদ্ধে অস্ত্র আইনে দারুস সালাম থানায় একটি মামলা দায়ের করা হয়েছে।

ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের সহকারী কমিশনার মহররম আলী বলেন, ‘খাইরুল একজন বড় অস্ত্র ব্যবসায়ী। কয়েক সহযোগীসহ সে অস্ত্রগুলো ঢাকায় এনেছিল সন্ত্রাসীগ্রুপের কাছে বিক্রি করতে। কিন্তু গোপন সংবাদের ভিত্তিতে অস্ত্রসহ খাইরুলকে গ্রেফতার করা হয়। অভিযানের বিষয়টি টের পেয়ে খাইরুলের সহযোগীরা পালিয়ে গেছে। তাদের গ্রেফতারে চেষ্টা চলছে।’

মহররম আলী জানান, ‘খাইরুল ঢাকায় যাদের কাছে অস্ত্রগুলো বিক্রি করার জন্য এনেছিলো তাদের কয়েকজনের নাম পাওয়া গেছে। তাদের বিস্তারিত তথ্য সংগ্রহ করা হচ্ছে।’ তাদের গ্রেফতার করা হবে বলে জানান তিনি।

গোয়েন্দা সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়,খাইরুলকে জিজ্ঞাসাবাদে তারা জানতে পেরেছে, তার বাড়ি পশ্চিমবঙ্গের উত্তর চব্বিশ পরগণার উপান নগরের সাতবাড়িয়া সুন্দরপুর এলাকায়। তার বাবার নাম মৃত রমজান মণ্ডল। সে বেশ কয়েকবছর ধরে অবৈধভাবে সীমান্ত দিয়ে ঢুকে অবৈধ অস্ত্রের ব্যবসা করে আসছিল। যাশোরের পুটখালী এলাকায় সে বিয়েও করেছে। তার স্ত্রী উত্তর চব্বিশপরগণায় থাকে। বাংলাদেশে অনুপ্রবেশ করে সে শশুরবাড়িসহ বিভিন্ন এলাকায় অস্ত্র ব্যবসার পার্টনারদের সঙ্গে থাকতো। সর্বশেষ সে আড়াই মাস আগে অবৈধভাবে বাংলাদেশে প্রবেশ করেছে বলে জিজ্ঞাসাবাদে জানিয়েছে।

গোয়েন্দা কর্মকর্তারা জানান,খাইরুলের আরও কয়েক সহযোগীর নাম পেয়েছেন। তারা সবাই বাংলাদেশি। এদের মধ্যে বাদশাহ মল্লিক, আলাউদ্দিন আলা ও জনি দেউড়ী উল্লেখযোগ্য। এরা দুজনই যশোরের বেনাপোল থানাধীন বারোপাতা ও রঘুনাথপুরের বাসিন্দা। অভিযানের সময় এই দুইজনও খাইরুলের সঙ্গে অবস্থান করছিল। পুলিশের অভিযানের বিষয়টি টের পেয়ে এরা পালিয়ে যেতে সক্ষম হয়।

অস্ত্র আনা হয়েছিলো স্কুলব্যাগে

গোয়েন্দা কর্মকর্তারা জানান, বেনাপোল সীমান্ত থেকে অস্ত্রগুলো আনা হয়েছিল স্কুল ব্যাগে করে। ব্যাগের ভেতর একেবারে নিচে অস্ত্রগুলো রেখে তার ওপর কাপড় রাখা হয়। এরপর কয়েক হাত বদলের পর অস্ত্রগুলো খাইরুলের হাতে আসে। বেনাপোলে বাহকদের হাতে অস্ত্রগুলো তুলে দিয়েছিল খাইরুল নিজেই। ঢাকায় সরাসরি কাস্টমারদের সঙ্গে ডিল করে বিক্রির কথা ছিল তার।

জিজ্ঞাসাবদে ভারতীয় নাগরিক খাইরুল জানিয়েছে, ঢাকার গেণ্ডারিয়ার জসিম, লোকমান ও জাবেদের কাছে অস্ত্রগুলো হস্তান্তর করার কথা ছিল। প্রতিটি অস্ত্রের দাম ধরা হয়েছিল ৮০ হাজার টাকা করে। তবে তাদের বিস্তারিত পরিচয় জানাতে পারেনি সে। গোয়েন্দা পুলিশের দায়িত্বশীল একজন কর্মকর্তা জানান, তারা ম্যানুয়াল সোর্সের মাধ্যমে ঢাকার আন্ডার ওয়ার্ল্ডের জসিম, লোকমান ও জাবেদ কারা তা জানার চেষ্টা করছেন। পরে তাদের অবস্থান ও পরিচয় শনাক্ত করে গ্রেফতার করা হবে।

খাইরুলকে জিজ্ঞাসাবাদের বরাত দিয়ে গোয়েন্দা সূত্র জানায়, ঢাকায় আসা এই চালানের অস্ত্রের গায়ে ইউএসএ লেখা থাকলেও এগুলো বিহারে তৈরি হয়। বিহার থেকে এসব অস্ত্র পলিথিনে মুড়িয়ে বালুর ট্রাকের ভেতরে রাখা হয়। এরপর এসব ট্রাক পশ্চিমবঙ্গে আসলে সেখান থেকে অস্ত্র আনা হয় উত্তর চব্বিশ পরগণার আস্তানায়। সেখান থেকে ভোরের দিকে বিশেষ কৌশলে সীমান্ত দিয়ে অস্ত্রগুলো পার করা হয় ।

banglatribune

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।