পুলিশি আতঙ্কে নেতাকর্মী শূন্য নয়াপল্টন

স্বেচ্ছাসেবক দলের কমিটি ঘোষণা ও বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভীর কারামুক্তিকে কেন্দ্র করে গত কয়েকদিন ধরেই নেতাকর্মীদের পদচারণায় সরব ছিল দলটির নয়াপল্টন কেন্দ্রীয় কার্যালয়। তবে শনিবার কার্যালয়ের সামনে থেকে দলের কয়েকজন নেতাকর্মীকে আটকের পর থেকেই বদলে গেছে কার্যালয়ের সামনের চিত্র।

সরেজমিনে দেখা গেছে, বিএনপির সহ-দফতর সম্পাদক তাইফুল ইসলাম টিপু ও ছাত্রদলের সহ-সভাপতি নাজমুল হাসানসহ পাঁচ নেতাকে আটকের পর থেকেই দলীয় কার্যালয়ে আসা বন্ধ করে দিয়েছেন নেতাকর্মীরা। রোববার দুপুরে এ প্রতিবেদন লেখা পর্যন্ত হাতে গোনা কয়েকজন নেতা ছাড়া অন্য কাউকে কার্যালয়ে দেখা যায়নি।

৭ নভেম্বর বিপ্লব ও সংহতি দিবস উপলক্ষে সোহরাওয়ার্দীতে সমাবেশের অনুমতি না পেয়ে ৮ নভেম্বর নয়াপল্টন কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে সমাবেশ করার ঘোষণা দিয়েছে বিএনপি। জনসমাবেশকে কেন্দ্র করে আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী দলের নেতাকর্মীদেরকে গ্রেফতার করছে বলে অভিযোগ করছে দলটি। আতঙ্ক ও ভয়ভীতি সৃষ্টি করতেই হঠাৎ ধরপাকড় শুরু করা হয়েছে বলেও দাবি বিএনপির।

এদিকে সমাবেশের আগে কার্যালয়ে আসলেই গ্রেফতার করা হতে পারে এমন আশঙ্কায় শনিবার বিকেল থেকেই নেতাকর্মী শূন্য হয়ে পড়ে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়। পাঁচ নেতাকে গ্রেফতারের পরই আত্মগোপন কৌশল অবলম্বন করছেন দলটির নেতাকর্মীরা।

পর্যবেক্ষণে দেখা গেছে, সাধারণত দলের শীর্ষ কোন নেতা নয়াপল্টনে অবস্থান করলে নেতাকর্মীদের উপচে পড়া ভীড় থাকে। তবে রোববার সকাল থেকে দুপুর পর্যন্ত দলের মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর ও সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী কার্যালয়ে অবস্থান করলেও নেতাকর্মীদের ভীড় লক্ষ্য করা যায়নি।

এদিকে ৫০২ সদস্যের আংশিক কমিটি ঘোষণার পর কার্যালয়ের সামনে থেকে এই প্রথম একসঙ্গে ৫ নেতাকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। তবে গ্রেফতারের পর কোন বিক্ষোভ মিছিল না হওয়ায় ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন অনেকে।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে মহানগর পর্যায়ের এক নেতা জাগো নিউজকে বলেন, কমিটি ঘোষণার পর বিএনপি অনেকটাই সংগঠিত। তবে কার্যালয়ের সামনে থেকে নেতাকর্মীদের আটক করা হলেও দলের নিরবতা ভবিষ্যত আন্দোলনকে প্রশ্নবিদ্ধ করবে।

তবে দলের সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী জানান, বিপ্লব ও সংহতি দিবস উপলক্ষে বিএনপি যাতে সমাবেশ করতে না পারে তাই আতঙ্ক ও ভয়ভীতি সৃষ্টি করতে কার্যালয়ের সামনে থেকে নেতাকর্মীদেরকে আটক করা হয়েছে।

এই ঘটনার তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানানো হলেও আটককৃতদের মুক্তির দাবিতে কোন কর্মসূচি পালন করা হবে কি না সে বিষয়ে কিছুই জানাননি রিজভী।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।