নেতা নির্বাচন, এ দল ও দল !!

এক দলের নেতা নির্বাচিত/মনোনীত হলে দায়িত্বের ভয়ে তিনি কান্নায় ভেঙে পড়েন। আরেক দলের নেতা নির্বাচিত/মনোনীত হলে বড় লিডারকে হাশিমুখে ফুল দিয়ে কৃতজ্ঞতা জানান । আরেক দলের নেতা নির্বাচিত/মনোনীত হলে বড় লিডারের পা ধরে প্রনাম করে কৃতজ্ঞতা জানান।

এর মধ্যে জ্ঞানীদের জন্যে শিক্ষা রয়েছে। জ্ঞানীরাই কেবল শিক্ষা গ্রহন করে। নেতৃত্ব পাবার জন্য কেউ কেউ লাখ লাখ টাকা খরচ করে। প্রয়োজনে মানুষ খুনও তারা করতে রাজি। আবার নেতৃত্ব জোর করে চাপিয়ে দিলে আখিরাতের জবাবদিহীতার ভয়ে কেউ কেউ চোখের পানিতে গাল ভিজিয়ে পেলে।

চেয়ারম্যান, মেম্বার, মেয়র, এম পি, মন্ত্রী প্রভৃতি জনপ্রতিনিধি ; যাদের কাছে মানুষের সম্পদ রক্ষিত থাকে, তারা যদি জানতো এটা কত বড় কাজ এবং আখিরাতে এর জবাবদিহিতা কত কঠিন, তাহলে পয়সা খরচ করে এসব দায়িত্বে যাবার চেষ্টা করাতো দূরের কথা; বরং এসব দায়িত্ব থেকে মুক্ত থাকার সর্বাত্মক চেষ্টা করতো!!!!!!

এ বিষয়টি যারা বুঝতে পেরেছে, তারা কখনো নেতৃত্ব চায়না; যোগ্য মনে করে অন্যরাই তাদের উপর নেতৃত্ব চাপিয়ে দেয়। এবং নেতা হবার পর এদের সম্পদের পরিমান আগের চেয়ে বহুগুনে কমে যায়।

উদাহরনস্বরূপ, খলিফা হবার আগে হযরত ওসমান (রাঃ) এর যত উট ছিলো, তা আরবের আর কারো ছিলোনা। কিন্তু তিনি যেদিন দুনিয়া থেকে বিদায় নেন, সেদিন তাঁর মাত্র একটি উট ছিলো, তাও তিনি রেখেছেন হজ্ব যাবার জন্যে।

ফেসবুক থেকে,
সৌজন্যে- সরফুদ্দিন আহমেদ লিঙ্কন।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।