হিন্দুরা এখন আওয়ামীলিগকে সাম্প্রদায়িক, ধর্মান্ধ, মৌলবাদী বলছে না কেন?

ব্রাম্মণ বাড়ীয়ার ঘটনা নিয়ে প্রথম দিকে ফুঁসে উঠেছিল বাম পড়া কিন্তু ঘটনা ফাঁস হয়ে আওয়ামীলিগ জড়িত থাকার প্রমাণ পাওয়ার পর চুপসে গেছে চেতনা, অবস হয়ে গেছে প্রতিবাদ।
.
ঘটনা ফাঁস না হলে অন্ধকারে ঢিল ছুড়ে বিএনপি-জামায়াতের ঘাড়ে দোষ চাপিয়ে ঘোলা পানিতে মাছ শিকার করতো মুরগী কবির গং। মুরগী কবিরদের গালে গণজুতা মেরে এই দেশ থেকে বের করে দেয়া উচিৎ। এরা জাতি ও সংখ্যালঘু উভয়ের শত্রু।
.
এখন তো কেউ আ’লীগকে সাম্প্রদায়িক, ধর্মান্ধ, মৌলাবাদি বলছেনা। আ’লীগ নিষিদ্বের দাবী তুলছেনা। আমি আগেই বলছি বাম-রাম পন্থীরা কোন ধর্মের আপন নয় বরং অসম্পদায়িক কার্ড ব্যাবহার করে নিজদের ধান্ধাবাজী চালায় মাত্র।
.
আচ্ছা, সংখ্যালঘু নির্যাতনে যদি কোন শিবির কর্মীর দাদা/নানার প্রতিবেশীও জড়িত থাকার গন্ধ পেত, ভাবুন তো কি অবস্থা হত!! ধরা পড়ার পর মুরগী কবির সুর পালটিয়ে বলতে লাগলো আ’লীগে শিবির ঢুকে গেছে। এদের জুতা মারলে জুতার অপমান হবে। এরা এত নিকৃষ্ট প্রাণী।

kutub shah

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।