সরকারের কাছে বিনীত আবেদন, রোহিঙ্গাদের জন্য বর্ডার খুলে দিন প্লিজ..

এক,
আমি বাংলাদেশের সাধারণ নাগরিক। একজন নাগরিক হিসেবে, মানুষ হিসেবে সরকারের কাছে বিনীত আবেদন করছি- রোহিঙ্গাদের জন্য বর্ডার খুলে দিন। রাজনৈতিক বিবেচনা, চিন্তা ও দর্শন নিয়ে বাংলাদেশে ডিবেট আছে-থাকবে। কিন্তু জীবন-মৃত্যুর মাঝামাঝি দাঁড়িয়ে থাকা রোহিঙ্গা জনপদকে হেফাজত করা প্রতিবেশী দেশ হিসেবে বাংলাদেশ সরকারের নৈতিক দায়িত্ব। আশা করি- সকল সংকীর্ণতার উর্ধে উঠে বাংলাদেশ সরকার অসহায় রোহিঙ্গাদের আশ্রয় দিয়ে বিশ্ব দরবারে ‘মানবিক বাংলাদেশ’ হয়ে উঠবে।

দুই,
কেন আশ্রয় দিব, কি লাভ হবে, কোথায় রাখবো- এইসব প্রশ্ন তোলার সময় এখন নয়। সরকার যদি বর্ডার খুলে দেয়, অতিথীপ্রেমী বাংলাদেশী নাগরিকরা তাদের সবটুকু ভালবাসা দিয়ে রোহিঙ্গাদের অন্য-বস্ত্রের ব্যবস্থা করবে ইনশাআল্লাহ্‌। সরকার যদি আহবান করে লাখো-কোটি টাকা রোহিঙ্গাদের জন্য ফান্ড হবে। দেশের জনগণ স্বতস্ফুর্তভাবে টাকা দিবে। আমি একজন সামান্য নাগরিক হয়ে বলছি- সাধ্যমত সরকারী ফান্ডে টাকা দেওয়ার চেষ্টা করবো।

তিন,
একটি দেশ বিশ্ব দরবারে সম্মানিত হওয়ার বিশেষ কিছু মুহুর্ত পায়। আমার বিশ্বাস বাংলাদেশ এখন সেই সুবর্ণ সুযোগের দরজায়। সরকার কি একটু বিচক্ষণ নজরে তাকাবে না?

চার,
রোহিঙ্গাদের সাময়িক আশ্রয় দেয়া মানেই বাংলাদেশে স্থায়ী বসতি গড়ে দেয়া নয়। আমি রোহিঙ্গাদের কোনভাবেই বাংলাদেশে দীর্ঘমেয়াদে দেখতে চাই না। বাংলাদেশ সরকারকে আপাত আশ্রয় দিয়ে বিশ্ব দরবারে দেন-দরবার শুরু করতে হবে। আমার মন বলছে- এই অঞ্চলের কূটনীতিতে বাংলাদেশের নড়াচড়া করার উপলক্ষ চলে এসেছে। বাংলাদেশ নেতা হতে পারে এখন।

পাঁচ,
বাংলাদেশের সাধারন নাগরিক, রাজনৈতিক দলসমূহ এবং মানবাধিকার সংস্থাগুলোকে পাশবিক বার্মা সরকারের বাংলাদেশ ‘দূতাবাস ঘেরাও’ কর্মসূচী ঘোষনা করার উদাত্ত আহবান করছি।

Noor Mohammad

১ টি মন্তব্য:

  • নভেম্বর 19, 2016 at 12:10 অপরাহ্ন
    Permalink

    আমি যতটুকু জানি হিন্দু মুসলিম বলে কথা না, বিপদে পড়লে তাকে সাহায্য করা। কোন ধর্ম এটা বলে নাই বিপদ্গ্রস্থ মানুষকে সাহায্য করো না। ভুল হলে ক্ষমা করবেন।

    Reply

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।