ছাত্রলীগ নেতার হামলায় আহত ছাত্রীর অবস্থা আশঙ্কাজনক

 

সিলেটে ছাত্রলীগ নেতার হামলার শিকার ছাত্রী খাদিজা বেগম নার্গিসের অবস্থা সংকটাপন্ন। আজ মঙ্গলবার বিকেলে অস্ত্রোপচার শেষে তাঁকে রাজধানীর স্কয়ার হাসপাতালে ৭২ ঘণ্টার নিবিড় পর্যবেক্ষণে রাখা হয়েছে। চিকিৎসকেরা বলছেন, খাদিজার শারীরিক অবস্থা নিয়ে এখন বলার মতো কিছু নেই। ৭২ ঘণ্টা পার হলে তবেই বলা যাবে।

গতকাল সোমবার বিকেলে সিলেট সরকারি মহিলা কলেজের ছাত্রী খাদিজার ওপর হামলা চালান শাহজালাল বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র ও ছাত্রলীগ নেতা বদরুল আলম। হামলার পর আহত ছাত্রীকে রাজধানীর স্কয়ার হাসপাতালে স্থানান্তর করা হয়। আজ দুপুরে তাঁর শরীরে অস্ত্রোপচার করা হয়। বিকেলে স্কয়ার হাসপাতালের নিউরো সার্জারির জ্যেষ্ঠ পরামর্শক রেজাউস সাত্তার সাংবাদিকদের বলেন, খাদিজাকে ৭২ ঘণ্টার পর্যবেক্ষণে রাখা হয়েছে। এরপর তাঁর অবস্থা সম্পর্কে বলা যাবে।

মঙ্গলবার রাজধানীর স্কয়ার হাসপাতালে নার্গিসকে অপারেশন থিয়েটারে নেওয়ার আগে তার চাচা আব্দুল কুদ্দুস ও মামা আব্দুল বাসেত বলেন, তিন ভাই ও এক বোনের মধ্যে নার্গিস দ্বিতীয়। তার বাবা মাসুদ মিয়া সৌদি প্রবাসী এবং মা মনোয়ারা বেগম গৃহিনী। বড় ভাই চীনে চিকিৎসাবিজ্ঞান নিয়ে পড়াশোনা করছেন, ছোট দুই ভাই দেশেই লেখাপড়া করে।

নার্গিসের মামা আব্দুল বাসেত বলেন, খবরের কাগজে এই ছেলের সঙ্গে নার্গিসের প্রেমের খবর প্রকাশিত হয়েছে, যা একেবারেই ঠিক নয়। ছেলেটি তাকে বিরক্ত করতো কিনা, এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘ও তো (নার্গিস) কখনও কিছু বলে নাই, ওর মায়ের সঙ্গেও এ বিষয়ে কথা হয়েছে আমার। সেও কিছু জানে না।’ এ সময় পাশে থাকা আব্দুল কুদ্দুস বলেন, ‘প্রেমের সর্ম্পক থাকলেই কি এইভাবে কুপাইতে হবে নাকি? মানুষ প্রেম করে আবার ভাইঙ্গাও যায়, তাই বইল্যা কী এইভাবে একজন আরেকজনরে কোপাইবো।

বাসেত বলেন, ‘নার্গিসের মা তার মেয়ের এই অবস্থার কথা এখনও জানেন না। সে জানে মেয়ের মাথায় একটুখানি কোপ লেগেছে, একটু পরপর মোবাইলে মেয়ের সঙ্গে কথা বলতে চাচ্ছে, কিছুতেই তাকে মানানো যাচ্ছে না। তাকে বলতে পারছি না মেয়েটারে যমে টানাটানি করতাছে, যেকোনও সময় নিয়া যাইবো।’

এদিকে, মানববাধিকার বাস্তবায়ন সংস্থার সিলেট শাখার কর্মী সাজ্জাদ হোসেন ইমন ছিলেন হাসপাতালে নার্গিসের পরিবারের সঙ্গে। তিনি বলেন, ‘এ ধরনের ঘটনা যেন না ঘটে সেজন্য দোষীর দৃষ্টান্তমূলক সাজা চাই। বদরুলকে দেখে যেন সমাজের অন্যরা ভয় পায়, আর কোনও নার্গিসকে যেন এ অবস্থার ভিতর দিয়ে যেতে না হয়; রাষ্ট্র এবং সমাজের কাছে সেই দাবি জানাচ্ছি।’

প্রসঙ্গত, সোমবার বিকালে নার্গিসকে ছাত্রলীগ নেতা বদরুল ইসলাম প্রকাশ্যে কুপিয়ে আহত করে। পরে গুরুতর আহত অবস্থায় তাকে সিলেট ওসমানী হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। রাতে অবস্থার অবনতি হলে নার্গিসকে নেওয়া হয় রাজধানীর স্কয়ার হাসপাতালে। এ ঘটনায় বদরুলের বিরুদ্ধে মামলা হয়েছে।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।