জার্মানির নব্য-নাৎসির গুলিতে আহত ৪ পুলিশ

জার্মানির জর্জেসমুন্ড শহরে ৪ কর্তব্যরত পুলিশ অফিসারকে গুলি করে হত্যার চেষ্টা করল এক নব্য-নাৎসিবাদী সন্ত্রাসী। ওই ব্যক্তি জার্মানীর উগ্র দক্ষিনপন্থী সংগঠণ রিচেসবার্গার মুভমেন্টের সক্রিয় সদস্য বলে জানা গিয়েছে। জার্মানীর বর্তমান ফেডারেল রাষ্ট্রব্যবস্থাকে অবৈধ বলে মনে করে এই সংগঠন। এবং যুদ্ধপূর্ব থার্ড রিক এর সীমায় ফিরে যেতে চায় সংগঠনটি। এরা চান্সেলর অ্যাঞ্জেলা মার্কেলের উদবাস্ত নীতির ঘোর বিরোধী।১৯ অক্টোবর এই ঘটনার পর ৫ দিন অতিবাহিত হয়ে গেলেও কোনও আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যম এই খবরকে গুরুত্ব দেয়নি।

নুরেমবার্গের পুলিশের দাবি, অবৈধভাবে অস্ত্র রাখার অভিযোগ পেয়ে এক ব্যক্তির বাড়িতে তল্লাশি চালাতে  গেলে পুলিশের ওপর অতর্কিত হামলা চালায় ওই ব্যক্তি। পুলিশ ওই ব্যক্তির বাড়ির দরজায় নক করারও সময় পায়নি। তার আগেই হামলা করে ওই ব্যক্তি। জোহান রাষ্ট নামে স্থানীয় পুলিশ প্রধান জানান, সে দরজার আড়ালেই লুকিয়ে ছিল। সেখান থেকেই গুলি চালায়। কত রাউণ্ড গুলি চালিয়েছে তার ধারণা নেই। পুলিশও পাল্টা গুলি চালায় এবং আহত অবস্থায় ওই ব্যক্তিকে গ্রেফতার করা হয়। পুলিশ তল্লাশি চালিয়ে আরও ৩০ টি আগ্নেয়াস্ত্র উদ্ধার করতে সক্ষম হয়েছে বলে দাবি পুলিশের। একজন পুলিশ অফিসারের অবস্থা আশঙ্কাজনক। বাকি তিনজনের শরীর থেকে গুলি বার করা হয়েছে।

পুলিশ উগ্র সংগঠনির গতিবিধির ওপর কড়া নজর রাখছে। ঘটনার পর তাদের ওপর নজরদারি আরও বেড়েছে। ২০১৫ সালের শুরু থেকে এখন পর্যন্ত জার্মানীর ২০০ টির বেশি ইমিগ্রেশন সেন্টারে বোমা বন্দুক সহ হামলা চালিয়েছে এই সংগঠনের সক্রিয় সদস্যরা। যদিও বিবিসি, সিএনএন, রয়টার্সের মত মূল ধারার মিডিয়া এইসব ঘটনাকে খুব সামান্যই গুরুত্ব সহকারে প্রকাশ করেছে। ফলে তা জার্মানীর বাইরে বের হয়নি। চলতি পুলিশের ওপর গুলি চালনার ঘটনাতেও কোনও মিডিয়ার বিশেষ আগ্রহ লক্ষ করা যায়নি। অভিযুক্তরা মুসলিম হলে মিডিয়া যেভাবে খবরে আগ্রহ প্রকাশ করে তা এক্ষেত্রে দেখা যায়নি।

উগ্র-দক্ষিণপন্থার এই উত্থান অনেকের কাছেই উদ্বেগের। ২০১১তে উগ্রদক্ষিণপন্থী Anders Behring Breivik এর হামলায় প্রাণ গেছিল ৭৭ জন মধ্যবাম শ্রমিকদল সমর্থকের। জার্মানীতে PEGIDA, ব্রিটেনে English Defence League, ফ্রান্সে Le Pen Group, ইতালিতে Liga Norde সহ ইউরোপজুড়ে এই জাতীয় দল গুলির দাপট বাড়ছে। উগ্রদক্ষিণপন্থী Alternative for Germany পূর্বজার্মানীতে প্রাদেশিক আইনসভায় দ্বিতীয় স্থান দখলসহ নিজের শক্তি বাড়িয়েছে। ইউরোপীয় সংসদে উগ্রদক্ষিণপন্থী EFDD ৪৬টি, ENL ৩৯টি এবং AENM ৭টি আসন দখল করে আছে।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।