বিএনপি নেতার মুক্তির দাবিতে থানায় হিন্দু নেতারা

নাসিরনগরে সংখ্যালঘুদের ওপর হামলার ঘটনায় গ্রেপ্তার বিএনপি নেতাকে ছাড়িয়ে নিতে থানায় ভিড় করেছেন স্থানীয় হিন্দু নেতারা। তাদের সঙ্গে হিন্দু সম্প্রদায়ের সাধারণ মানুষও ছিলেন। তাদের বক্তব্য, গ্রেপ্তার হওয়া ইউনিয়ন বিএনপির সভাপতি আমিরুল হোসেন চকদার কোনোভাবেই ঘটনার সঙ্গে জড়িত নন। তাকে অন্যায়ভাবে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। তারা ওই বিএনপি নেতার মুক্তি দাবি করেন।

মঙ্গলবার রাতে সদর ইউনিয়ন বিএনপির সভাপতি আমিরুল ইসলাম চকদারকে দত্তপাড়ার নিজ বাড়ি থেকে গ্রেপ্তার করে নাসিরনগর থানার পুলিশ। জানা গেছে, উপজেলা পূজা উদযাপন পরিষদের সভাপতি কাজল জ্যোতি দত্ত এবং সাধারণ সম্পাদক হরিপদ পোদ্দার, উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান অঞ্জন দেব তাকে ছাড়ানোর জন্য থানায় যান।

এ সময় ব্রাহ্মণবাড়িয়ার সহকারী পুলিশ সুপার সদর সার্কেল আব্দুল করিম হিন্দু নেতাদের বলেন, “আইনি প্রক্রিয়ার মধ্য দিয়ে তাকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। আদালতের মাধ্যমেই তাকে ছাড়িয়ে আনতে হবে। এর বিকল্প কোনো পথ নেই।”গত ৩০ অক্টোবর হিন্দু সম্প্রদায়ের মন্দির ও বাড়িঘরে হামলার একটি মামলায় গ্রেপ্তার দেখিয়ে আমিরুল ইসলামকে বুধবার দুপুরে আদালতে পাঠানো হয়। তাকে গ্রেপ্তারের পর দুই ধরনের তথ্য দেয় পুলিশ। নাসিরনগর থানার ওসি আবু জাফর গণমাধ্যমকে জানান, ৩০ অক্টোবর হিন্দু সম্প্রদায়ের মন্দির ও বাড়িঘরে হামলার ঘটনায় ভিডিও ফুটেজ দেখে তাকে আটক করা হয়েছে। এ সময় সাংবাদিকরা ভিডিও ফুটেজে আমিরুলের ছবি আছে কিনা তা দেখতে চান। কিন্তু ওসি তা দেখাতে পারেননি।

পরে নিজের দেয়া আগের বক্তব্য থেকে সরে এসে ওসি বলেন, “গোয়েন্দা তথ্যের ভিত্তিতে ওই দিনের ঘটনায় জড়িত থাকার অভিযোগে তাকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।”

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।