ময়মনসিংহের ফুলবাড়ীয়া ডিগ্রি কলেজ- পুলিশের হামলায় কলেজ শিক্ষক নিহত !

ময়মনসিংহের ফুলবাড়ীয়া ডিগ্রি কলেজকে জাতীয়করণের দাবিতে আন্দোলনরত শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের ওপর হামলা চালিয়েছে পুলিশ। পুলিশের লাঠিপেটা ও উভয় পক্ষের সংঘর্ষে ওই কলেজের উদ্ভিদবিদ্যা বিভাগের সহকারী অধ্যাপক আবুল কালাম ও পথচারী ভ্যানচালক সফর আলী (৫৫) নিহত হয়েছেন।

রোববার দুপুরে কলেজ প্রাঙ্গণ থেকে বিক্ষোভ মিছিল বের করতে চাইলে এ ঘটনা ঘটে।

এ ঘটনায় শিক্ষক-শিক্ষার্থীসহ অর্ধশতাধিক আহত হয়েছেন। ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া, ইটপাটকেল নিক্ষেপ ও সংঘর্ষে পুরো এলাকা রণক্ষেত্রে পরিণত হয়। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে পুলিশ ১০-১৫ রাউন্ড গুলি ছুঁড়ে।

বিকাল সাড়ে ৫টায় এ রিপোর্ট লিখার সময়ও ক্ষুব্ধ শিক্ষক-শিক্ষার্থী ও স্থানীয়দের সঙ্গে পুলিশের থেমে থেমে ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া, ইটপাটকেল নিক্ষেপ, গুলি ও সংঘর্ষ চলছিল।

সংঘর্ষের ঘটনায় কলেজ ও উপজেলা পরিষদের আশপাশের সব দোকানপাট বন্ধ রয়েছে। পুরো এলাকাজুড়ে উত্তেজনা বিরাজ করছে। উপজেলা পরিষদের সামনে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন রয়েছে।

ময়মনসিংহের পুলিশ সুপার সৈয়দ নুরুল ইসলাম জানান, পুলিশের ওপর শিক্ষার্থীরা ইটপাটকেল নিক্ষেপ করলে পুলিশ আত্মরক্ষায় লাঠিচার্জ করে ও ফাঁকা গুলি ছুঁড়ে। নিহত দুইজনই অসুস্থ ছিল বলে দাবি করেন তিনি।

প্রত্যক্ষদর্শী ও শিক্ষার্থীরা জানান, পুলিশের বেধড়ক লাঠিপেটায় কলেজের উদ্ভিদবিদ্যা বিভাগের সহকারী অধ্যাপক আবুল কালামসহ গুরুত্বর আহত হন। আহত ওই শিক্ষককে ময়মনসিংহের চুরখাই কমিউনিটি বেজড মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হলে বিকাল ৪টার দিকে তিনি মারা যান।

অন্যদিকে পুলিশের লাঠিপেটায় সফর আলী নামে একজন পথচারী ঘটনাস্থলেই মারা যান। ফুলবাড়িয়া স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের চিকিৎসকরা তার মৃত্যুর বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

ফুলবাড়িয়া থানার ওসি রিফাত খান রাজিব জানান, সফর আলী সংঘর্ষে মারা যায়নি। তিনি অসুস্থ ছিলেন।

পরিস্থিতি এখন শান্ত রয়েছে বলেও জানিয়েছেন ওসি।

স্থানীয়রা জানান, বহু পুরনো ফুলবাড়ীয়া ডিগ্রি কলেজকে জাতীয়করণ না করে নতুন ও এমপিওবিহীন বেগম ফজিলাতুন্নেছা মুজিব মহিলা মহাবিদ্যালয়কে জাতীয়করণ করায় ফুঁসে উঠে ফুলবাড়িয়াবাসী। এ নিয়ে ক্ষুব্ধ ফুলবাড়ীয়া ডিগ্রি কলেজের শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা ক্লাস-পরীক্ষা বর্জন করে কলেজটি জাতীয়করণের দাবিতে টানা ৪৩ দিন ধরে বিক্ষোভ, সড়ক অবরোধ ও মানববন্ধনসহ নানা কর্মসূচি পালন করে আসছেন।

এর ধারাবাহিকতায় রোববার দুপুর ২টার দিকে শিক্ষক ও শিক্ষার্থীরা কলেজ প্রাঙ্গণ থেকে বিক্ষোভ মিছিল বের করতে চাইলে পুলিশ প্রধান ফটকে তাদের আটকে দেয়। এ সময় পুলিশ মারমুখী হয়ে শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের ব্যাপক লাঠিচার্জ করে ছত্রভঙ্গ করে দেয়।

পরে পুলিশ কলেজের প্রশাসনিক ভবনে ঢুকে শিক্ষক-শিক্ষিকা ও শিক্ষার্থীদের বেধড়ক পেটায়। এ সময় এক শিক্ষার্থী আটক করা হলে বিক্ষুব্ধ শিক্ষার্থীদের সঙ্গে পুলিশের ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া, ইটপাটকেল নিক্ষেপের ঘটনা ঘটে।

পুলিশের হামলায় যারা গুরুতর আহত হয়েছেন তাদের মধ্যে রয়েছেন- জাতীয়করণ আন্দোলন কমিটির আহ্বায়ক সহকারী অধ্যাপক আবুল হাশেম, হেলাল উদ্দিন, উপেন্দ্র চন্দ্র, ফজলুল হক, প্রভাষক রুমা আখতার, শিক্ষার্থী আসাদ, কামাল, রুবেল প্রমুখ।

জাতীয়করণ আন্দোলন কমিটির যুগ্মআহবায়ক রুহুল আমীন জানান, বিক্ষোভ মিছিলকে কেন্দ্র করে পুলিশ কলেজের প্রশাসনিক ভবনে প্রবেশ করে শিক্ষক-শিক্ষিকা ও শিক্ষার্থীদের বেধড়ক পিটিয়েছে। এ সময় পুলিশ নির্বিচারে গুলি ছুঁড়ে। এমন পৈশাচিক ঘটনা চোর-ডাকাতদের সঙ্গেও ঘটানো হয় না।

এদিকে শিক্ষকসহ দুইজনের মৃত্যুর খবর ছড়িয়ে পড়লে শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের মধ্যে শোকের ছায়া নেমে আসে। পুরো ফুলবাড়িয়ায় চরম উত্তেজনা ও আতংক বিরাজ করছে।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।