নৌকা প্রতীকে আগাম সিল!

ইউনিয়ন পরিষদ (ইউপি) নির্বাচনে ফেনী জেলার ১১টি ইউনিয়নে ব্যাপক অনিয়োমের অভিযোগ পাওয়া গেছে। সকাল থেকে ভোট কেন্দ্রগুলোতে ভোটারদের উপস্থিতি তেমন চোখে পড়েনি।

বিভিন্ন কেন্দ্রে গিয়ে আওয়ামী লীগ মনোনীত চেয়ারম্যান ও মেম্বারদের প্রার্থীদের প্রতীকে আগাম সিলমারা ব্যালট দেখা গেছে।
এদিকে ফেনী সদরের ধর্মপুর ইউনিয়নে আওয়ামী লীগ সমর্থিত চেয়ারম্যান প্রার্থী সাহাদাত হোসেন সাকার সমর্থকর হামলায় আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী আজহারুল হক আরজুর অন্তত ২০ জন সমর্থক আহত হয়েছেন বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে।

আহতদের মধ্যে মিল্লাত (২৮), তুহিন (২২), হান্নান (২৬), বাবু (২৬), মো. ইউছুপ (৩৭), রমজান আলী (২৮) ও সরোয়ার হোসেনের অবস্থা গুরুতর।

আহতদের একজনকে চট্টগ্রাম ও অন্যদের ফেনী সদর হাপতালসহ বিভিন্ন ক্লিনিকে চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে।
এ ঘটনায় বিদ্রোহী প্রার্থী আজহারুল হক আরজু ও নৌকার প্রার্থী সাহাদাত হোসেন সাকা একে অপরকে দায়ী করেছেন।
নির্বাচন পরবর্তী যে কোনো সময় আওয়ামী লীগ সমর্থীত প্রার্থী ও বিদ্রোহী প্রার্থীর মধ্যে বড় ধরনের সংঘর্ষ ঘটনার আশংকা করছেন এলাকাবাসী। তারা সংঘর্ষ এড়াতে জেলা পুলিশ প্রশাসনের কাছে দ্রুত ব্যবস্থার দাবি জানিয়েছেন।

অন্যদিকে ব্যাপক জালভোট, কেন্দ্র দখলের অভিযোগ এনে বালিগাওয়ে বিএনপি প্রার্থী আমিনুল করিম ফয়েজ, মুন্সিরহাটে বিএনপি প্রার্থী আবু হানিফ বাবু ও আমজাদহাট ইউনিয়নের জাসদ (ইনু) প্রার্থী গোলাম জব্বার পল্টুসহ অন্য চেয়ারম্যান প্রার্থীরাও ভোট বর্জন করে নতুন তফসিল ঘোষণার দাবি জানিয়েছেন।

সোমবার যেসব ইউনিয়নে নির্বাচন হয়েছে- ফেনী সদর থানার ধর্মপুর, বালিগাও, ফুলগাজী থানার আনন্দপুর, দরবারপুর, মুন্সিরহাট, ফুলগাজী সদর, জিএমহাট, আমজাদহাট, পরশুরাম থানার মিজানগর, চিথলিয়া এবং বক্সমাহমুদ ইউনিয়ন।

এর মধ্যে ফুলগাজীর আনন্দপুর ও দরবারপুর এবং পরশুরামে চিথলিয়া, মিজানগর, বকসমাহমুদ ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদে আওয়ামী লীগ প্রার্থীরা বিনাপ্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হয়েছেন।

jugantor

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।