মকবুল আহমাদের বিরুদ্ধে মানবতাবিরোধী অপরাধের অভিযোগ ভিত্তিহীন: জামায়াত

জামায়াতে ইসলামীর আমির মকবুল আহমাদের বিরুদ্ধে মানবতাবিরোধী অপরাধে জড়িত থাকার অভিযোগ ভিত্তিহীন বলে দাবি করছে দলটি। সোমবার দলের নায়েবে আমির মুজিবুর রহমান এক বিবৃতিতে এ দাবি করেছেন।

এদিকে সোমবার দুপুরে আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালের তদন্ত সংস্থার সমন্বয়ক আবদুল হান্নান খান সংবাদ সম্মেলন করে জানিয়েছেন, ‘ফেনীর মকবুল হোসেন রাজাকার ছিল তা স্পষ্ট। কিন্তু আমাদের কাছে কোনও সুনির্দিষ্ট অভিযোগ ছিল না। তবে একটি অনলাইন পত্রিকায় কয়েকদিন আগে দু’টি অভিযোগ স্পেসিফিকভাবে তুলে ধরে প্রতিবেদন বের হলে, আমরা গুরুত্ব দিয়ে বিষয়টির তদন্ত শুরু করি।’

বিবৃতিতে মুজিবুর রহমান বলেন, ‘আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালের তদন্ত সংস্থার সমন্বয়ক হান্নান খান সংবাদ সম্মেলনে জামায়াতে ইসলামীর আমির মকবুল আহমাদের মানবতাবিরোধী অপরাধে জড়িত থাকার প্রাথমিক তথ্য প্রমাণ রয়েছে, মর্মে যে মন্তব্য করেছেন, তা ভিত্তিহীন মিথ্যা। ১৯৭১ সালে মকবুল আহমাদ ফেনীর একটি উচ্চ বিদ্যালয়ের শিক্ষক ছিলেন। তখন তিনি রাজাকার বা রাজাকার কমান্ডার বা শান্তি কমিটির সংগঠক হওয়া দূরের কথা, একজন সাধারণ সদস্যও ছিলেন না। কাজেই মুক্তিযুদ্ধের সময় তার মানবতাবিরোধী অপরাধে জড়িত থাকার প্রাথমিক তথ্য-প্রমাণ থাকার প্রশ্নই আসে না।’

মুজিবুর রহমান বলেন, ‘মকবুল আহমেদ রাজাকার বাহিনীর সঙ্গে জড়িত ছিলেন না। তার বিরুদ্ধে ৭ থেকে ১১ জনকে হত্যা এবং তৎকালীন পূর্ব-পাকিস্তান ছাত্র ইউনিয়নের নেতা মুক্তিযোদ্ধা মাওলানা ওয়াজ উদ্দিনকে হত্যার নির্দেশ দেওয়ার যে অভিযোগ করা হয়েছে, তা সম্পূর্ণ মিথ্যা। কোনও হত্যাকাণ্ডের সঙ্গেই তিনি জড়িত ছিলেন না। মিথ্যা মামলায় জড়ানোর অসৎ উদ্দেশ্যেই তার বিরুদ্ধে নানা মিথ্যা অভিযোগ তোলা হচ্ছে।

banglatribune

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।