মিরাজের তারকা হয়ে উঠার পিছনের গল্প!

ইংল্যান্ডের বিপক্ষে বাংলাদেশের টেস্ট সিরিজ শেষ হবার পর যাকে নিয়ে এখন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমসহ বিভিন্ন গণমাধ্যমে আলোচনা চলছে, তিনি হলেন মেহেদী হাসান মিরাজ। মাত্র ১৯ বছর বয়স তাঁর, কিন্তু এই বয়সেই জাতীয় দলের হয়ে অভিষেক সিরিজে দুটি টেস্ট খেলে ১৯টি উইকেট শিকার করে ফেলেছেন তিনি। চট্টগ্রামে টেস্টে জীবনের প্রথম ইনিংসে ছয়টি উইকেট সহ ৭টি উইকেট। আর এরপর মিরপুরে দ্বিতীয় টেস্টে মিরাজ নিয়েছেন ১২টি উইকেট। বাংলাদেশের জাতীয় ক্রিকেট দলে মেহেদী হাসানকে নতুন তারকা হিসেবে বর্ণনা হলেও ক্রিকেটে তাঁর অলরাউন্ডার কীর্তি আগেই দেখেছে বিশ্ব। অনুর্ধ্ব-১৯ ক্রিকেট বিশ্বকাপে বাংলাদেশ দলের নেতৃত্ব দানকারী মেহেদী হাসান মিরাজই সেই টুর্নামেন্টে সেরা খেলোয়াড়ের পুরস্কার জিতেছিলেন। ক্রিকেট অঙ্গনে মিরাজের আগমনটা কিভাবে হয়েছিল? কার কাছে তিনি নিয়েছিলেন ক্রিকেটের হাতেখড়ি? পরিবারের কাছ থেকে জানা গেল মেহেদী হাসান মিরাজ ক্রিকেট খেলা শুরু করেন একেবারে নিজের আগ্রহ থেকেই।

বরিশালে মিরাজের জন্ম হলেও তাঁর পুরো পরিবার গত ১৬ বছর ধরে খুলনায় বাস করছে। বাবা, মা আর ছোট বোন নিয়ে মিরাজের পরিবারের সদস্য চারজন।
বাবা মো: জালাল হোসেন একজন অটোরিক্সা ড্রাইভার। আর্থিক টানাপোড়েনের মধ্যেই বেড়ে উঠেছেন মিরাজ। ক্রিকেট খেলায় ছোটবেলা থেকেই আগ্রহ ছিল তাঁর। তবে পরিবার থেকে ক্রিকেট খেলায় কোনও সমর্থন পেতেন না বলে লুকিয়ে ক্রিকেট খেলতেন তিনি। এমনকি ক্রিকেট খেলার জন্য বাবার হাতে মারধোরও খেতে হয়েছে মিরাজকে। তাঁর বাবা জালাল হোসেনও একথা স্বীকার করে বললেন যে আর সব বাবার মতো তিনিও চাইতেন ছেলে ভালোমতো লেখাপড়া শিখে ভালো চাকরি করুক। “প্রথম থেকেই আমি তার ক্রিকেট খেলাকে সমর্থন করতাম না। আমি গরীব মানুষ, আর সবার মতো আমিও চাইতাম ছেলে ভালো পড়ালেখা করে সরকারি চাকরি করুক। ক্রিকেট খেলে যে সে এতদূর আসবে এটাতো আমার কল্পনাতেও ছিল না” – বলেন মিরাজের বাবা জালাল হোসেন। মি: হোসেন জানান, খুলনার কাশিপুর ক্রিকেট একাডেমির কোচ মো: আল মাহমুদের হাত ধরেই মেহেদী হাসান মিরাজ এতদূর এগিয়েছে।

কথা হয়েছিল মো: আল মাহমুদের সাথেও। মি: মাহমুদ জানান, মিরাজকে তিনি আট বছর বয়স থেকে দেখছেন এবং সেই বয়স থেকেই ক্রিকেট খেলার প্রতি তীব্র আগ্রহ ছিল ছেলেটির মধ্যে। কিন্তু একাডেমিতে যে টাকা দিয়ে ভর্তি হয়ে ক্রিকেট খেলবে সেই অবস্থা মিরাজের ছিল না। একে তো টানাটানির সংসার, অন্যদিকে লুকিয়ে সে ক্রিকেট খেলতো। তবে প্রতিবেশী রাসেল হোসেনের সহায়তায় কোচ আল মাহমুদকে পাশে পান মিরাজ। আল মাহমুদ বলছিলেন, মিরাজের অর্থনৈতিক অবস্থা ভালো না হলেও ওর তীব্র ইচ্ছা আর সাহসী মানসিকতা দেখে তাকে তিনি প্রশিক্ষণ দেয়া শুরু করেন। “সবচেয়ে মজার বিষয় হলো মিরাজের বাবা মাঠে এসেও তাকে মারধোর করেছে, মাঠ থেকে নিয়ে যেতো। আমি একদিন বললাম আপনি যদি ওকে এখানে খেলতে না দেন তাহলে এই এলাকায় আপনি থাকতে পারবেন না” – মিরাজের বাবাকে হুমকি দেয়ার বিষয়টি হাসতে হাসতে জানাচ্ছিলেন মি: মাহমুদ।

ছোটবেলা থেকেই ক্রিকেট খেলার প্রতি তীব্র আগ্রহ ছিল মিরাজের। ওই একাডেমি থেকে বয়সভিত্তিক বাছাইয়ে প্রথমেই অনুর্ধ্ব-১৪ দলে সুযোগ পান মেহেদী হাসান মিরাজ। অনুর্ধ্ব-১৪ টুর্নামেন্টে সেরা খেলোয়াড় হিসেবে ২৫ হাজার টাকা জেতেন মিরাজ, এরপর অবশ্য তাঁর বাবা আর খেলায় বেশি বাধা দেননি। অনুর্ধ্ব-১৪ টুর্নামেন্টের পর অনুর্ধ্ব-১৫ টুর্নামেন্টেও ডাক পান মিরাজ। তারপর আস্তে আস্তে নিজের যোগ্যতার প্রমাণ দিতে থাকেন তিনি। অনুর্ধ্ব-১৯ দলে জায়গা করে নিয়ে দলের নেতৃত্ব দেয়ার সুযোগও চলে আসে তাঁর সামনে এক সময়। আর অনুর্ধ্ব-১৯ বিশ্বকাপ টুর্নামেন্টে থেকেই মেহেদী হাসান মিরাজের নামটি জানতে পারেন অনেকে। এরপর তাঁর পারফরম্যান্স দিয়েই তিনি জাতীয় দলে জায়গা করে নেন। এরপর জাতীয় দলে অভিষেকে তাঁর পারফরম্যান্স দেখেছে বিশ্ববাসী। যদিও ব্যাট হাতে নিজের দক্ষতা দেখাতে পারেননি মিরাজ, তবে ক্রিকেট বিশেষজ্ঞদের অনেকে বলছেন বাংলাদেশের নতুন এই মুখ ক্রিকেটকে অনেক কিছু দেবার যোগ্যতা রাখেন।

বিবিসি বাংলা।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।